বাগেরহাট- সুন্দরবনের প্রবেশদ্বার

Back to Posts

বাগেরহাট- সুন্দরবনের প্রবেশদ্বার

‘‘সুন্দরবনে বাঘের বাস, দড়াটানা ভৈরব পাশ, সবুজে শ্যামলে ভরা,

নদীর বাঁকে বসতো যে হাট –তার নাম বাগেরহাট।’’ কবি আবু বকর সিদ্দিক

ইউনেসকো ঘোষিত বাংলাদেশে যে তিনটি বিশ্ব ঐতিহ্য স্থান রয়েছে, তার দুটির গর্বিত অবস্থান এই বাগেরহাটে। এর একটি হচ্ছে – ঐতিহাসিক ষাটগম্বুজ মসজিদসহ খানজাহান (রহ:) এর কীর্তি, অন্যটি প্রকৃতির অপার বিষ্ময় সুন্দরবন।

অনেকে কেবল মাত্র ষাটগম্বুজ মসজিদকেই বিশ্ব ঐতিহ্যের স্থান মনে করলেও প্রকৃত পক্ষে খানজাহান আমলে তার দ্বারা নির্মিত মসজিদসহ পুরো শহরটিই জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা (ইউনেসকো) ১৯৮৩ সালে বিশ্ব ঐতিহ্যের স্থান হিসাবে তালিকাভুক্ত করে।

বাগেরহাটকে বলা হয় ‘ঐতিহাসিক মসজিদের নগরী’। যা বর্তমানে সাংস্কৃতিক বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ। বিশ্বের হারিয়ে যাওয়া ১৫টি শহরের তালিকায় (ফোর্বস) রয়েছে এই জেলার নাম। খুলনা থেকে ১৫ মাইল দক্ষিণ পূর্ব দিকে এবং ঢাকা থেকে ২০০ মাইল দক্ষিণ পশ্চিশে বাগেরহাট জেলার অবস্থান।

বাগেরহাট বাংলাদেশের খুলনা বিভাগের অন্তর্গত একটি জেলা। এ জেলার উত্তরে গোপালগঞ্জ ও নড়াইল জেলা, পশ্চিমে খুলনা জেলা, দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর এবং পূর্বে পিরোজপুর জেলা ও বরগুনা জেলা।  বাগেরহাট জেলা সদরের অধিকাংশ ভৈরব নদীর পশ্চিম তীরে এবং শহরের বর্ধিত অংশ ভৈরবের দক্ষিণ প্রবাহ দড়াটানার পশ্চিম তীরে অবস্থিত।

বাগেরহাট জেলার মোট আয়তন ৫৮৮২.১৮ বর্গ কিলোমিটার। লোকসংখ্যা ১৪,৭৬,০৯০ জন। উপজেলা ০৯টি, ইউনিয়ন ৭৫টি, গ্রামেরসংখ্যা ১,০৪৭ টি, মৌজারসংখ্যা ৭২০টি, পৌরসভা ৩টি, নদ-নদী ৩২টি, খাল ৫৪৭টি, বিল ৩২টি, মসজিদ ২৫১৪টি, মন্দির ৬৯৪টি, গীর্জা ১৮টি, বনাঞ্চল (সুন্দরবন) ১,৮৬৮.৯১ বর্গকিঃমিঃ, সমুদ্রবন্দর ০১টি (মংলাসমুদ্রবন্দর) ,ইপিজেড ১টি (মোংলা ইপিজেড)। কচুয়া, চিতলমারী, ফকিরহাট, বাগেরহাট সদর, মোংলা, মোড়েলগঞ্জ, মোল্লাহাট, রামপাল, শরণখোলা প্রভৃতি উপজেলা।

দর্শনীয় স্থান

  • ষাট গম্বুজ মসজিদ
  • খান জাহান আলী-এর মাজার
  • সুন্দরবন
  • মংলা বন্দর
  • রেজা খোদা মসজিদ
  • জিন্দা পীর মসজিদ
  • ঠান্ডা পীর মসজিদ
  • সিংগাইর মসজিদ
  • বিবি বেগুনি মসজিদ
  • চুনাখোলা মসজিদ
  • নয় গম্বুজ মসজিদ
  • কোদলা মঠ
  • রণবিজয়পুর মসজিদ
  • দশ গম্বুজ মসজিদ
  • সুন্দরবন রিসোর্ট, বারাকপুর
  • চন্দ্রমহল, রনজিতপুর।
  • প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা
  • ষাট গম্বুজ মসজিদ
  • খান জাহানের সমাধি
  • রেজা খোদা মসজিদ
  • জিন্দা পীর মসজিদ
  • ঠান্ডা পীর মসজিদ
  • সিংগাইর মসজিদ
  • বিবি বেগনী মসজিদ
  • চুনাখোলা মসজিদ
  • নয়গম্বুজ মসজিদ
  • সিংগার মসজিদ
  • এক গম্বুজ জামে মসজিদ, বাগেরহাট
  • পীর আলীর সমাধি
  • কোদলা মঠ
  • রণবিজয়পুর মসজিদ
  • দশ গম্বুজ মসজিদ
  • কুটিবাড়ি,জমিদারবাড়ি,মোড়েলগঞ্জ।
  • বড় আজিনা
  • ছয় গুম্বজ মসজিদ, বৈটপুর
  • খান জাহানের নির্মিত প্রাচীন রাস্তা
  • সুন্দরবন
  • ঢাংমারী বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্য
  • মাঝের চর, শরণখোলা
  • চাঁদপাই বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্য
  • দুধমুখী বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্য
  • সুন্দরবন পূর্ব বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্য
  • দুবলার চর
  • দীঘি/ জলাশয়
  • ঘোড়া দীঘি
  • খানজাহান আলীর দীঘি
  • ঘোড়া দীঘি
  • কোদাল ধোয়া দীঘি
  • মংলা বন্দর
  • খান জাহান আলী বিমানবন্দর
  • সুন্দরবন রিসোর্ট, বারাকপুর
  • চন্দ্রমহল, রনজিতপুর।
  • বাগেরহাট জাদুঘর
  • ওয়ান্ডার কিংডম
  • বাগেরহাট পৌর পার্ক
  • শেখ হেলাল উদ্দিন স্টেডিয়াম
  • রুপা চৌধুরী পৌর পার্ক
  • ডিসি পার্ক, যাত্রাপুর

 

কৃতী ব্যক্তিত্ব

  • মতিউর রহমান মল্লিক (কবি ও সাহিত্যিক) ৷
  • হালিমা খাতুন (অধ্যাপক ও সাহিত্যিক) ৷
  • মাওঃ একেএম ইউসুফ, সাবেক মন্ত্রী
  • রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহ (কবি)
  • রুবেল হোসেন ক্রিকেট (খেলোয়াড়) ৷
  • নীলিমা ইব্রাহিম, (সাহিত্যিক)।
  • আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ (সাহিত্যিক, সংগঠক)
  • দিব্যেন্দু দ্বীপ (সাহিত্যিক ও গবেষক)
  • মোহাম্মদ রফিক (কবি)
  • মোহাম্মদ ফারুক (বিজ্ঞানী)
  • মোহাম্মদ তারেক (সাবেক সচিব)
  • আনিসুর রহমান (সমাজতাত্ত্বিক, কবি, ও নির্মাতা)

 

লোক সংস্কৃতি/ মেলা

  • যাত্রাপুরের রথের মেলা
  • তালেশ্বরের রথের মেলা
  • খাঞ্জেলির মেলা
  • মুনিগঞ্জের মেলা
  • নবান্নের মেলা
  • ঝলমলের মেলা
  • দুবলার মেলা
  • লক্ষ্মীখালির মেলা
  • শিববাড়ীর মেলা
  • মঘিয়ার মেলা
  • কালাচাঁদ ফকিরের মেলা
  • কুদিমা বটতলার মেলা
  • ঝড়ু গাছতলার মেলা
  • কালখেরবেড়ের মেলা
  • চাঁদপাই এর মেলা
  • রুদ্রমেলা
  • বানিজ্য মেলা
  • বৈশাখী মেলা

 

কিভাবে যাবেন?

স্থল পথে-

আকাশ পথে-

জল পথে-

 

খাওয়া দাওয়া

 

রাত্রী যাপন

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to Posts
error: Content is protected !!