শাহপরীর দ্বীপ

Back to Posts

শাহপরীর দ্বীপ

পর্যটন নগরী কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে নাফ নদীর মোহনায় বাংলাদেশ-মায়ানমার সীমান্তে শাহপরীর দ্বীপের অবস্থান। একসময় এটি দ্বীপ থাকলেও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে কিছুকাল আগে এটি মূল ভূ-খণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হয়ে গেছে। শাহপরীর দ্বীপের তিনটি সৈকত রয়েছে। এখান থেকে দেখা যায় মায়ানমারের মঙডু প্রদেশ। একটু সামনে থেকে দেখা যায় সেন্টমার্টিন দ্বীপ। এখানে আছে বিজিবি চৌকি ও ওয়াচ টাওয়ার।

পাহাড়-সমুদ্রের অনিন্দ্য সৌন্দর্যমণ্ডিত এই বিস্তীর্ণ দ্বীপটি টেকনাফ উপজেলা শহর থেকে দূরত্ব প্রায় ১৫ কিলোমিটার।এটি মূলত সাবরাং ইউনিয়নের একটি গ্রাম। জনশ্রুতি আছে শাহসুজার স্ত্রী পরীবানুর ‘পরী’ ও শাহসুজার ‘শাহ’ মিলে এই দ্বীপের নামকরণ করা হয়েছে শাহপরীর দ্বীপ। আবার কেউ কেউ বলে শাহ ফরিদ আউলিয়ার নামেই এ দ্বীপের নামকরণ। শাহপরীর দ্বীপ এর নামকরণের এরকম আরো অনেক ইতিহাস প্রচলিত আছে স্থানীয়দের কাছে।

এখানকার সবচেয়ে বড়ো আকর্ষণ হলো দিগন্তজোড়া লবণপ্রান্তর, জেলেপাড়ার ধার, ঘাট কিংবা সৈকতে জেলেরা সমুদ্র থেকে তাজা মাছ নিয়ে ফিরবে। লাফানো অবস্থায় মাছ কিনে নিতে পারবেন। চাইলে বাজারে বা ঘাটের পাশে কোনো দোকানে মাছ রান্না করিয়ে নিতে পারেন। তারপর তাজা সমুদ্রের মাছ রান্না করে খাওয়ার তাজা অনুভূতি নিয়ে ফিরে আসুন।

জোস্নারাতে গোলার চরে যদি সময় কাটাতে চান। তাহলে বলার কিছু নেই। তিনদিকে সমুদ্র চারদিকে চিকচিক বালু, সুনসান নিরবতা আর দূরে মৃদু মৃদু আলোর রেখা জেলেরা মাছ ধরছে সমুদ্রে। এমন একটা অপার্থিব দৃশ্য দেখার লোভ থাকলে শাহপরীর দ্বীপ ঘুরে আসুন।

এখান থেকে কিন্তু আপনি নৌকা, ট্রলার ও স্পিডবোটে যেতে পারবেন সেন্টমার্টিন। সময় লাগবে ২০ থেকে ২৫ মিনিট। আর টাকা ৩০০ টাকাও যেতে পারবেন পুরো বোট ভাড়া করলে লাগবে ২ থেকে আড়াই হাজার। চাইলে রাতে এখানে থেকে সকালে সেন্টসমাটিন গিয়ে বিকেলে ফিরে আসতে পারেন।

কীভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে সরাসরি টেকনাফ যায় সেন্টমার্টিন সার্ভিসের ( ০১৭১১৩২১১৪৩, ০১৮২৩০০৪৪৮৮) হিনো এসি বাস। ভাড়া ১১৫০ টাকা। এছাড়াও ঢাকা থেকে শ্যামলি, এস আলম, সৌদিয়া, হানিফ ইত্যাদি পরিবহনের নন এসি বাস যায় টেকনাফ। ভাড়া ৬৫০-৮০০ টাকা। ঢাকা থেকে যেকোনো বাসে কক্সবাজার এসে সেখান থেকেও সহজেই আসা যায় টেকনাফ। কক্সবাজার শহর থেকে লোকাল মাইক্রোবাসসহ বেশকিছু বাস যায় টেকনাফ। ভাড়া ১২০-২৫০ টাকা। কক্সবাজার থেকে টেকনাফের বাস ছাড়ে আন্ত:জেলা বাস টার্মিনাল থেকে আর মাইক্রোবাসগুলো ছাড়ে শহরের কলাতলী এবং টেকনাফ বাইপাস মোড় থেকে। টেকনাফ শহর থেকে জীপে বা সিএনজিতে চড়ে যেতে হয় শাহপরীর দ্বীপ এ।

কোথায় থাকবেন

শাহপরীর দ্বীপে এলজিইডি একটি বাংলা রয়েছে। অগ্রিম যোগাযোগ করলে ২০০ থেকে ৪০০ টাকা ভাড়াতে সহজেই থাকতে পারবেন। তবে শাহপরীর দ্বীপে পৌঁছে উপযুক্ত কারণ দেখিয়ে হয়তো এই বাংলাতে থাকতে পারবেন। আপনি চাইলে শাহপরীর দ্বীপ এ তাবু টানিয়ে থাকতে পারবেন।

তবে ওখানে ম্যানেজ করতে না পারলে আপনাকে থাকতে হবে টেকনাফ শহরে। বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের মোটেল নে টং সহ আরো কিছু সাধারণ মানের হোটেল আছে। এসব হোটেলে ৩০০-১৫০০ টাকা ভাড়ায় কক্ষ পাওয়া যাবে।

তথ্য সহযোগিতার প্রয়োজনে যোগাযোগ- আব্দুল গণি, উদ্যোক্তা, সাবরাং ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার, টেকনাফ, কক্সবাজার, 01811622043

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to Posts
error: Content is protected !!